নির্বাচন

বিজয়ী হয়ে চাপ অনুভব করছেন ব্যারিস্টার সুমন

দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের বেসরকারিভাবে ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী হবিগঞ্জ -৪ আসনের ১৭৭টি কেন্দ্রে ঈগল মার্কায় ব্যারিস্টার সুমন ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৬৯ হাজার ৯৯ টি । নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী টানা দুবারের সংসদ সদস্য এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী নৌকা মার্কায় ভোট পেয়েছেন ৬৯ হাজার ৫৪৩ টি।

৭ জনুয়ারি রবিবার রাতে বেসরকারিভাবে ফলাফল ঘোষণা করার পর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি গণমাধ্যমের সাথে কথা বলেন।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, বেসসরকারি ফলাফলের হিসেবে আমি এই মুহূর্তে প্রায় দেড় লাখ ভোটের ব্যবধানে জয়ী। এত বেশি ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হওয়ার কারণে আমার ভয় হচ্ছে। বেশি ভোটের জেতার কারণে আমার কাছে দায়িত্ব অনেক গুন্ বেড়ে গেছে। এই দায়িত্বটা আমি ঠিকমতো পালন করতে পারব কিনা সেটা নিয়ে আমার এখন ভয় করছে । আমার অধীনে এখন প্রায় ৮ লাখ মানুষ। তাদের ভাগ্য বদলে দেয়ার কথা আমি বলেছি। এটা নিয়ে আমি অনেক বেশি প্রেশার অনুভব করছি।বিজয়ী হয়ে চাপ অনুভব করছেন ব্যারিস্টার সুমন

জয়ী হয়ে তিনি কতটা খুশি জানতে চাইলে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, এই জয় নিয়ে যে আমি খুব খুশি বিষয়টাও তা না। আসলে দায়িত্ব পাওয়া খুব বেশি খুশির কিছু নাই। সংসদ সদস্য হওয়া খুব উপভোগ করারও কিছু না। এখন আমার মধ্যে চিন্তা হচ্ছে কীভাবে আমার এলাকার উন্নয়ন করা যায়। এখন প্রতিক্রিয়া হিসাবে বলতে পারি মানুষ ভালোবেসে আমার উপর বিশ্বাস রেখে আমাকে ভোট দিয়েছে। তবে হেরে গেলে হয়তো মন খারাপ হতো তবে এত প্রেশারও থাকত না। কিন্তু জিতে যাওয়ার কারণে অনেক ভালো লাগতেছে, তবে অনেক প্রেশার অনুভব করছি।

তিনি বলেন, এই জয়টা যে শুধু আমার বা আমার এলাকার মানুষের তা না, এটা পুরো বাংলাদেশের। সারা দেশের মানুষ আমার জন্য দোয়া করেছেন এবং চেয়েছেন আমি যেন নির্বাচিত হই।

নৌকার পরাজয় কেন হলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি আগেও বলেছি মূলত আমার নির্বাচনটা নৌকা না, বরং নৌকার মাঝির বিরুদ্ধে। মাঝি যদি ভালো না হয় ওই নৌকায় মানুষ উঠবে না । নৌকার একটা পবিত্রতা আছে, নৌকার একটা মিশন আছে। আপনি যদি নৌকার সঙ্গে কাজই না করেন, সারাক্ষণ নৌকার উপর বসে থাকেন তাহলে একসময় এই নৌকা ডুবে যাবে।

সংসদ সদস্য হিসেবে প্রথমে কী কাজ করতে চান, জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার এলাকার পাশে একটি নদী আছে। ময়লা-আবর্জনাতে নদীটি মরা নদীতে পরিণত হয়েছে। এই নদীকে জীবীত করতে চাই। নদী দিয়ে আমি প্রথম কাজ শুরু করতে চাই।

হবিগঞ্জ-৪ আওয়ামী লীগ প্রার্থী বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী জনাব মাহবুব আলী নৌকা মার্কায় , স্বতন্ত্র পদপ্রার্থী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সমুন ঈগল মার্কায়, জাতীয় পার্টির দলীয় পদপ্রার্থী জনাব আহাদ উদ্দিন চৌধুরী লাঙ্গল মার্কায়,

বাংলাদেশ কংগ্রেসের পদপ্রার্থী মো: আল আমিন ডাব মার্কায়, ইসলামি ঐক্যজোট বাংলাদেশের পদপ্রার্থী আবু ছালেহ মিনার মার্কায়, বিএনএম পদপ্রার্থী মো: মুখলেছুর রহমান নোঙ্গর মার্কায়, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের পদপ্রার্থী মো: আব্দুল মমিন চেয়ার, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক ঐকজোটের পদপ্রার্থী মো: রাশেদুল ইসলাম খোকন ছড়ি মার্কায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।বিজয়ী হয়ে চাপ অনুভব করছেন ব্যারিস্টার সুমন

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোট ভোটার ১১ কোটি ৯৬ লাখ ৯১ হাজার ৬৩৩ জন। এর মধ্যে ৬ কোটি ৭ লাখ ৭১ জন হাজার ৫৭৯ পুরুষ ভোটার এবং আর ৫ কোটি ৮৯ লাখ ১৯ হাজার ২০২ জন নারী ভোটার । এছাড়াও হিজড়া ভোটারের সংখ্যা ৮৫২ জন। দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনে সারা দেশের ২৯৯টি আসন থেকে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন ১ হাজার ৯৭০ জন প্রার্থী। এর মধ্যে ১ হাজার ৫৩৪ জন ২৮টি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রার্থী।

বাকি ৪৩৬ জন ছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী। নওগাঁ-২ আসনে এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে ভোট হচ্ছে ২৯৯ আসনে। ওই আসনটিতে পরে ভোটগ্রহণ অনষ্ঠিত হবে। সব আসনেই ব্যালট পেপার ব্যবহার করে ভোটগ্রহণ করা হয়েছে ।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ আরো ১৬ টি রাজনৈতিক দল নির্বাচন বর্জন করেছে। দলটি আওয়ামীলীগ সরকার পতনের দাবিতে দীর্ঘদিন আন্দোলন করে। তারা সফলতা না পেয়ে নির্বাচনের দুই মাস আগ থেকে সরকারকে চাপে ফেলতে হরতাল-অবরোধের পথ বেছে নেয়। এতে কোনো লাভ না হলে তারা ভোট বর্জনের ‘অসহযোগ আন্দোলনের’ আহ্বান জানায় ।

আরো পড়ুন:- হারের পরের দিন শোডাউন করেননি মাহিয়া মাহি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *