খেলাধুলা

অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ জয়ী বাংলাদেশ ২০২৩

পাঁচ ম্যাচের পাঁচটিতেই জিতে, ফাইনালে UAE কে ১৯৫ রানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের শিরোপা জিতল বাংলাদেশের যুবারা। আজ রবিবার বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ দল এবং ইউনাইটেড আরব আমিরাত অনূর্ধ্ব ১৯ দল একে অপরের বিরুদ্ধে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয়।

অনূর্ধ্ব ১৯ এশিয়া কাপ ফাইনাল ২০২৩

সকালে ইউনাইটেড আরব আমিরাত অনূর্ধ্ব ১৯ দলের ক্যাপ্টেন আয়ান আফজাল খান টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠায়। ইনিংস এর শুরু টা বাংলাদেশ ওপেনাররা ধীরেসস্থে শুরু করলেও, ইনিংসের পঞ্চম ওভারে অমিত রহমান বাংলাদেশ শিবিরে প্রথম আঘাত আনেন। তিনি জিসান আলমকে দ্রুব পারাসের দারুন ক্যাচেপরিণত করেন। জিসান আলম ১৫ বলে ৭ করে দলীয় ১৪ রানে আউট হন।

জিসানের রাউটে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। ওপেনার আশিকুর রহমান শিবলী ও ওয়ান ডাউন এ নামা চৌধুরী মোহাম্মদ রিজওয়ান চাপ সামলে দারুন একটি পার্টনারশিপ করেন। তারা দুইজন এ মিলে ১২৫ রান এর বিশাল পার্টনারশিপ করেন। দলীয় ১৩৯ রান এ রিজওয়ান ৬ মারতে গিয়ে দ্রুব পারাসের এর বলে বাদামি এর হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন। যাওয়ার আগে তিনি ৭১ বল এ ৬০ রান করেন।

এরপর মাঠে নামেন সেমি ফাইনালে ইন্ডিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক আরিফুল ইসলাম। তিনি মাঠে নেমে দ্রুত রান তুলতে শুরু করেন এরপর মাঠে নামেন সেমি ফাইনালে ইন্ডিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক আরিফুল ইসলাম।

তিনি মাঠে নেমে দ্রুত রান তুলতে শুরু করেন। তিনি শিবলীর সাথে ৮৬ রান এর দারুন পার্টনারশিপ করেন। শিবলী ১২৬ বল এ নিজের সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। এটি তার টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। আরিফুল ইসলাম দলীয় ২৫০রান আউট হলেও শিবলী ছিলেন অবিচল। আরিফুল ৪০ বল এ ৫০রান করে আউট হন।

বাংলাদেশ বড় সংগ্রহের দিকে এগিয়ে যেতে থাকে। লোয়ার অর্ডারে মাহফুজুর রহমান রাব্বি ১১ বলে ২১ রান করেন। শিবলী ১২৯ রান করলে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫০ ওভার শেষ এ ৮ উইকেটে ২৮২ রান।

২৮২ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের বোলারদের দাপটে দাঁড়াতেই পারেনি আরব আমিরাতের ব্যাটাররা। তারা ২৫ ওভারে সাতাশি রান অলআউট হয়। বাংলাদেশের পক্ষ মারুফ মৃধা সাত ওভার বল করে তিন উইকেট নেন, ইমন ১৫ খরচায় দু উইকেট নেন, বর্ষণ ২৬ রানে খরচায় তিন উইকেট নেন এবং জীবন পাঁচ ওভারে সাত রান খরচায় 2 উইকেট নেন।

অনূর্ধ্ব ১৯ এশিয়া কাপ ফাইনাল প্লেয়ার অফ দ্যা ম্যাচ ২০২৩

১৪৯ বলে ১২টি চার ও এক ছক্কার সাহায্যে আশিকুর রহমান শিবলী ১২৯ রান করায় ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে নির্বাচিত হন।

অনূর্ধ্ব ১৯ এশিয়া কাপ ফাইনাল প্লেয়ার অফ দ্যা টুর্নামেন্ট ২০২৩

আশিকুর রহমান শিবলী এই টুর্নামেন্টে দুইটি সেঞ্চুরি এবং দুটি হাফ সেঞ্চুরির সাহায্যে সর্বোচ্চ মোট 378 রান করেন তাই তাকে প্লেয়ার অব দ্য টুর্নামেন্ট ঘোষণা করা হয়েছে।

অনূর্ধ্ব ১৯ এশিয়া কাপে বাংলাদেশের স্কোয়াড ২০২৩

আশিকুর রহমান শিবলী,

জিসান আলম,

চৌধুরী মোহাম্মদ রিজওয়ান,

আরিফুল ইসলাম,

আরআর আমিন,

মোঃ শিহাব জেমস,

মাহফুজুর রহমান,

পারভেজ রহমান জীবন,

রহনাতুল্লাহ বর্ষণ।

এর আগে বাংলাদেশ গ্রুপ পর্বে আরব আমিরাত, শ্রীলংকা ও জাপানকে দাপটের সাথে হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠে। সেমিফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হয় তারা সেমিফাইনালে ভারতকে কোনরকম পাত্তা না দিয়ে দাপটের সাথে ম্যাচ জিতে নেয়।

ম্যাচ জিতে ফাইনালে উঠে এবং ফাইনালে আরব আমিরাতের সাথে আবার মুখোমুখি হয়। এবারও তারা আরব আমিরাতকে কোনরকম সুযোগ না দিয়ে ম্যাচ হারিয়ে প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপ অনূর্ধ্ব ১৯ এশিয়া কাপ জিতে নেয়।

এদিকে আরব আমিরাত গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের সাথে হারের পর শ্রীলংকা ও জাপানকে দাপটের সাথে হারিয়ে, B গ্রুপের রানার্সআপ হয়ে ,A গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানের সাথে সেমিফাইনালে মুখোমুখি হয়। তারা পাকিস্তানকে সেমিফাইনালে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে।

অধিনায়কের কিছু কথা

বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহফুজুর রহমান রাব্বি বলেন, আমরা পত্থমবারের মত অনূর্ধ ১৯ এশিয়া কাপ জিতে খুশি হয়েছি। আমি আমার টিমমেটদের প্রতি খুবই খুশি। তারা বাংলাদেশকে এশিয়া কাপ জিতে সাহায্য করেছে।

বিশেষ করে আশিকুর রহমান শিবলী খুবই দারুণ ব্যাটিং করেছেন তিনি এই টুর্নামেন্টের ৩৭৮ রান নিয়ে ম্যান অফ দা টুর্নামেন্ট হয়েছে। আমাদের বোলার রাও খুব ভালো বল করেছে।

বিশেষ করে নতুন বলে মৃদুল মিতা ও ইমন দারুণ বোলিং করেছে। এতে আমাদের পরের বোলারদের জন্য কাজটা আরও সহজ হয়ে গেছে। আমাদের ব্যাটসম্যান এই টুর্নামেন্টে তেমন একটা পরীক্ষার মুখে পড়েননি। কারণ আমাদের বোলিং অনেক ভাল ছিল।

কিন্তু সেমিফাইনালে আরিফুলের এনিগস টি দারুন ছিল. তিনি 94 বলে 90 রানের জন্যই আমরা ফাইনালে উঠতে পেরেছি।

One thought on “অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ জয়ী বাংলাদেশ ২০২৩

  • Shakib

    thanks Bangladesh

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *